আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে দুর্নীতির অভয়ারণ্য, ঘুষ ছাড়া জমা হচ্ছে  না পাসপোর্টের আবেদন।।লেন -দেন সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ করে পাসপোর্ট অফিসের  জয়নাল এবং জাকির

আগের সংবাদ

মনোহরদী উপজেলা প্রেসক্লাবের নির্বাচন অনুষ্ঠিত

পরের সংবাদ

দীর্ঘ তিন যুগপর বাঁশখালীর বঙ্গবন্ধু সড়ক সংস্কার কাজে জসিম হায়দার

প্রকাশিত: মার্চ ২, ২০২৪ , ৪:০৩ অপরাহ্ণ আপডেট: মার্চ ২, ২০২৪ , ৪:০৩ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার উপকূলবাসীর দীর্ঘস্বপ্ন বঙ্গবন্ধু সড়ক উন্নয়ন, দীর্ঘ ৩৫ বছর যাবৎ এই ব্যস্তম সড়কে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি, এরই মধ্যে সড়কটির উন্নয়ন কাজ শুরু করায় প্রশংসায় ভাসছেন খানখানাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান জসিম হায়দার।

সরেজমিনে পরিদর্শনে দেখা যায়, বঙ্গোপসাগরের বেড়িবাঁধ থেকে উপকূলীয় এলাকার খানখানাবাদ ইউপির ৮ নং ওয়ার্ডের সুন্ধি পাড়া হয়ে আসা বঙ্গবন্ধু সড়কে মাটি ভরাটের কাজের চলমান দৃশ্য।ওই এলাকার ৭০ বছর উর্ধ্বে বয়সী বেশ কয়েকজন লোক বলেন, নির্বাচন আসলেই সড়কটি সংস্কারের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোটারদের কাছ থেকে ভোট আদায় করে থাকেন জন প্রতিনিধিরা। কিন্তু অতীতের কোন প্রতিনিধিরা এই সড়কের কাজ করেনি। সাম্প্রতিকে সন্ধি পাড়ায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় বেশ কয়েকটি বসতঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেলেও যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে আসতে পারেনাই। বর্তমান চেয়ারম্যান জসিম হায়দার সড়কটির কাজ করতেছে, তাই আমরা এলাকাবাসী তাকে ধন্যবাদ জানাই।

পরিদর্শনকালে ইউপি চেয়ারম্যান জসিম হায়দার বলেন, নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি পালন ও উপকূলের মানুষের স্বপ্ন পুরণের লক্ষ্যে জনস্বার্থে উন্নয়ন মূলক কাজ করে যাচ্ছি, এরই মধ্যে প্রায় ২০ কোটি টাকার উর্ধ্বে এলজিইডিসহ সরকারি বরাদ্দ এনেছি, ওইসব বরাদ্দ থেকে বিবি চৌধুরী সড়ক, আব্দুল হালিম সড়ক, ডোংরা রায়ছটা সড়কের কার্পেটিং কাজ সম্পন্ন ও চলমান রয়েছে। এছাড়াও জরাজীর্ণ হয়ে পড়া বিভিন্ন সড়কের রিপিয়ারিং কাজসহ বেশি কয়েকটি সড়ক ব্রিক সলিন কাজ সম্পন্ন করেছি। আর অসমাপ্ত কাজ গুলো করতে মাননীয় সাংসদ আলহাজ্ব মুজিবুর রহমান সিআইপির সুদৃষ্টি কামনা করছি। এসময় উপস্থিত ছিলেন, ইউপি সদস্য দিদারুল আলম,মোঃ জায়নাব, লিয়াকত আলী চৌধুরী, রুহুল আমিনসহ অন্যান্য ইউপি সদস্যরা।

জসিম হায়দার আরো বলেন, ১৯৭১ সনে স্বাধীনতা যুদ্ধের পর বঙ্গবন্ধু প্রেমি এই এলাকার প্রবীণ মুরুব্বিরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার পিতা ও স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধুর নামে বঙ্গবন্ধু সড়কটি উৎসর্গ করেছিলেন। তবে দূর্ভাগ্য হলেও সত্য যে দীর্ঘ ৩৫ বছর যাবত সংস্কার বা কোন ধরনের উন্নয়ন না হওয়ার ফলে সড়কটি বিলিন হয়ে অস্তিত্বহীন হয়ে পড়েছে। ৮ নং ওয়ার্ডের সন্ধি পাড়া, সাইট পাড়া, রায়ছটা, প্রেমাশিয়াসহ বিভিন্ন এলাকায় মাদ্রাসা, স্কুল, কলেজে পড়ুয়া শিক্ষার্থীসহ প্রতিনিয়ত অন্তত ১০/১৫ হাজার মানুষের একমাত্র যাতায়াত মাধ্যম হচ্ছে এই বঙ্গবন্ধু সড়ক। তাই মানুষ ভোগান্তির বিষয়টি বিবেচনা করে জন দুর্ভোগ দূর করতে বঙ্গবন্ধু সড়কটির কাজ শুরু করেছি। এই সড়কের ৪ কি.মি. কাজের মধ্যে বেশিরভাগ অংশে প্রায় ৩/৪ ফিটের বেশি আবারও কোনো কোনো অংশে তার চেয়ে আরো বেশি পরিমাণ মাটি ভরাট করতে হচ্ছে। সড়কটির দুইপাশ থেকে মাটি নেওয়ার ব্যবস্থা না থাকার ফলে অনেক দুর থেকে ওইসব মাটি সংগ্রহ করে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। তবে এই সড়কটির যথাযথ উন্নয়ন করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সুদৃষ্টি কামনা করেন চেয়ারম্যান জসিম হায়দার।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, রুপান্তর প্রতিদিন এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়