বিশ্বকাপ নিয়ে জ্যোতিষীর ভবিষ্যদ্বাণীতে সাকিবের নাম!

আগের সংবাদ

বাংলাদেশি টাকায় আজকের মুদ্রা বিনিময় হার

পরের সংবাদ

নাশতা বিক্রেতা থেকে বিশ্বমঞ্চে হারিস রউফ

প্রকাশিত: অক্টোবর ৪, ২০২৩ , ৭:২৩ পূর্বাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ৪, ২০২৩ , ৭:২৩ পূর্বাহ্ণ

ক্রিকেট সমর্থকদের কাছে হারিস রউফ নামটি বেশ পরিচিত। সাম্প্রতিক সময়ে পাকিস্তানের পেস ইউনিটের অন্যতম কাণ্ডারি তিনি। ২০২০ সালে দ্য গ্রিন ম্যানদের জার্সিতে অভিষেকের পর থেকেই আস্থার প্রতিদান দিচ্ছেন ২৯ বছর বয়সী এই পেসার। তবে ক্রিকেটে তার পথচলা সিনেমার গল্পকেও হার মানাবে।

 

ছোটবেলা থেকেই ক্রিকেটের প্রতি তার প্রবল ঝোঁক ছিল, যা তাকে ক্রমেই এনে দিয়েছে তারকাখ্যাতি। আর রউফের বোলিংয়ের মূল অস্ত্র গতি। নিয়মিত ১৪৫ কিমি বেগে বল করতে পারেন তিনি।

 

এবার ক্রিকেট বিশ্বমঞ্চে খেলতে যাচ্ছেন পাকিস্তান জাতীয় দলের অন্যতম সেরা এই অস্ত্র। তবে অবাক করার বিষয়, একসময়ে নিজের খরচ জোগাতে বাজারে নাশতা বিক্রি করতেন এই পেসার। সম্প্রতি ক্রিকেটভিত্তিক ওয়েবসাইট ক্রিকইনফোর এক তথ্যচিত্রে এমনটাই জানিয়েছেন হারিস রউফ।

 

১৯৯৩ সালে রাওয়ালপিন্ডিতে জন্মগ্রহণ করেন হারিস। বিশ্ববিদ্যালয় জীবন থেকেই টেপ টেনিস বলে ক্রিকেট খেলেছেন হারিস। মূলত বিশ্ববিদ্যালয়ের খরচ মেটানোর জন্যই ক্রিকেট খেলতেন তিনি।

 

প্রামাণ্যচিত্রে হারিস জানিয়েছেন, ম্যাট্রিকের পরে খরচ জোগানোর জন্য আমি বাজারে গিয়ে খাবার বিক্রি করতাম। রোববারে নাশতাও বিক্রি করতাম। মায়ের একটা স্বপ্ন ছিল, নিজেদের একটা বাড়ি হবে। যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হই, বাবা আমার ফি দেওয়ার মতো আয় করতেন না। আমি নিজেও এমন আয় করতাম না। কিন্তু টেপ টেনিস ক্রিকেট খেলে সহজেই ফি দিতে পারতাম। টেপ টেনিস ক্রিকেট খেলে পাকিস্তানে ক্রিকেটাররা দুই থেকে আড়াই লাখ রুপি পর্যন্ত আয় করতে পারেন। আমিও এমন আয় করতাম আর টাকা মায়ের হাতে দিতাম।

 

২০১৭ সালে লাহোর কালান্দার্সের ট্রায়ালে অংশ নেন হারিস। এরপর চোখে পড়েন কোচ আকিব জাভেদের। এই কোচই মূলত তাকে বদলে দিয়েছেন। এরপরই তার যাত্রা শুরু। প্রামাণ্যচিত্রে আকিবের চোখে পড়ার গল্পও শুনিয়েছেন হারিস।

 

হারিসের ভাষ্যমতে, ট্রায়ালে যারা ঘণ্টায় ৮৩ থেকে ৮৪ মাইল গতিতে বল করছিলেন, তাদের নির্বাচন করা হচ্ছিল। কিন্তু আমি যখন বল করি, প্রথম বলের গতি ছিল ঘণ্টায় ৮৮ মাইল। কোচ তাহির মুঘল ভেবেছিলেন স্পিড মেশিনে কোনো সমস্যা আছে। তিনি আকিব ভাইকে ডাক দেন। তিনি (আকিব) আমাকে বল করতে বলেন, দ্বিতীয় বলটা করলাম ৯০ মাইল গতিতে। যখন আবার বোলিং করতে বললেন, তৃতীয় বলটা করলাম ৯২ মাইল গতিতে।

 

মূলত এই ট্রায়ালের পরই জীবন বদলে যায় হারিসের। সেই ট্রায়ালের পর অস্ট্রেলিয়ায় যান তিনি। ২০১৮ সালে সেখানে আবুধাবি টি-টোয়েন্টি ট্রফির জন্য লাহোর কালান্দার্সে ডাক পান হারিস। এভাবেই দ্য গ্রিন ম্যানদের জার্সিতে আগমন হয় তার।

 

এরপর ঘরোয়া ক্রিকেটে চমক দেখিয়ে অল্প সময়েই জাতীয় দলের জায়গা করে নেন হারিস। এবার প্রথমবারের মতো খেলতে যাচ্ছেন বিশ্বকাপে। আর চোটের কারণে নাসিম শাহ না থাকায় বাড়তি দায়িত্বও সামলাতে হবে তাকে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, রুপান্তর প্রতিদিন এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়