মহেশপুর থানার ওসি’র আবেগঘন ফেসবুক স্ট্যাটাস

আগের সংবাদ

দৈনিক আমাদের সংবাদ পত্রিকার যুগ পূর্তীতে নতুন কার্যালয়ের উদ্বোধন

পরের সংবাদ

বাঁশখালীতে জরাজীর্ণ ঘরে হাঁউ মাঁউ করে কাঁদছে বিধবা নুর জাহান

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২৪ , ৮:২৭ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২৪ , ৮:২৭ পূর্বাহ্ণ

চট্টগ্রামের বাঁশখালীর পৌরসভা এলাকার নুর জাহান নামে এক বিধবার একমাত্র মাথা গোছানোর ঠাই বসতঘরটি আর্থিক অভাবের কারণে সংস্কার করতে না পারায় ঘরটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ায় রাত আসলেই একটু ঘুমানোর জন্যে মানুষের দ্বারেদ্বারে ঘুরে ওই অসহায় নারী।

জানা যায়, অর্থনৈতিক সংকট ও অভাব অনটনের কারণে উপজেলার পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ডের মৃত কাশেম আলীর মেয়ে বিধবা নুর জাহান, একমুঠো খাবার যোগাড় করতে সারাদিন মানুষের বাসা-বাড়ীতে কাজ করেন, এতে কোনো ভাবে নুনে ভাতে খেতে পারলেও তাও অনেক সময় কপালে জুটেনা। একমাত্র মাথা গোছানোর ঠাই মাটির দেয়াল ও পুশের ছাউনিযুক্ত ছোট্ট কুঁড়ে ঘরটি দীর্ঘ ৬/৭ বছর যাবত সংস্কার করতে না পারায় জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। রাত আসলেই মেয়ে ও অবুঝ দুই নাতি নিয়ে মানুষের দ্বারেদ্বারে ঘুরতে হয় ওই বিধবা মহিলা।অভাবের কারণে বসতঘরটি সংস্কার করতে না পারায় একটু ঘুমানোর জন্যে মানুষের দ্বারেদ্বারে গিয়ে শত ধিক্কার- তিরস্কার সহ্য করতে সেই বিধবাকে। বর্ষার মৌসুমে শুরু হলেই বাহিরের চেয়ে বৃষ্টির পানি দ্বিগুণে বেশি ঢুকে পড়ে জরাজীর্ণ সেই ঘরটির ভিতরে।

১০ ফেব্রুয়ারী (শনিবার) সকালে পরিদর্শন গেল দেখা যায়, জরাজীর্ণ ঘরে হাঁউ মাঁউ করে কাঁদছে দুই অবুঝ শিশু। সাথে কাঁদছে বিধবা নুর জাহান ও মেয়ে বেবি আক্তার। নেই কোন অর্থ, নেই কোন সম্পদ। স্বামীর মৃত্যুর পর থেকেই একমাত্র মেয়ে বেবি আক্তারকে নিয়ে বাবার বাড়িতে চলে আসেন বিধবা নুর হাজান।

মেয়ে বেবি আক্তারকে গ্রামের এক ছেলের সাথে বিবাহ দিয়ে ঘর জামাই হিসেবে রাখা হলেও ৫/৬ বছরের মাথায় ছোট্ট ছোট্ট দুই নাতি ও মেয়ে বেবিকে রেখে পালিয়ে যান মেয়ের জামাই।

আর্থিক অভাবের কারণে ৬/৭ বছর যাবত বসতঘরটি সংস্কার করতে না পারায় ছিড়ে ছিড়ে পড়ছে ঘরের ছাউনি, ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে মাটির দেয়াল, দেখার কেউ নেই। অসহায়ত্বের কথা বলতে গিয়ে হাঁউ মাঁউ করে কান্না শুরু করেন সেই বিধবা নুর জাহান ও মেয়ে বেবি আক্তার। এবছর আগাম বৃষ্টির ফলে তেরপাল মোড়ানো সেই কুঁড়েঘরটির মাটির দেয়াল গুলো আরো বেশি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে গেছে। যার ফলে মেয়ে ও অবুঝ দুই নাতি নিয়ে মাথা গোছানোর একমাত্র ঠিকানা জরাজীর্ণ বসতঘরটি সংস্কার করতে সরকার ও স্থানীয় বৃত্তবানদের সহযোগিতা কামনা করেন অসহায় নুর জাহান।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, রুপান্তর প্রতিদিন এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়