পাবনার ভাঙ্গুড়ায় এক রাতের ব্যবধানে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম

আগের সংবাদ

বেনাপোলে স্বর্ণের বারসহ এক ব্যক্তিকে আটক করেছে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ

পরের সংবাদ

বাহারচড়া উপ-নির্বাচনে আলোচনার শীর্ষে করিম ভান্ডারী

প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৯, ২০২৪ , ৮:৪৫ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ২৯, ২০২৪ , ৮:৪৬ পূর্বাহ্ণ

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার বাহারচড়া ইউপি চেয়ারম্যান মৃত্যু বরণ করায় পদটি শূন্য হয়ে পড়ে, এরই মধ্যে দেশের বিভিন্ন জায়গার উপ-নির্বাচানের সাথে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বাহারচড়া ইউনিয়নের শূন্য পদের উপ-নির্বাচন।

এই নিয়ে ওই ইউনিয়নের বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায়, দোকান-পার্টসহ পুরো এলাকাজুড়ে মানুষের মুখে মুখে চলছে উপ-নির্বাচন নিয়ে নানান আলোচনা, এতে মানুষের মুখে মুখে আলোচনার শীর্ষে রয়েছে সেই জনপ্রিয় মানুষটির নাম, যিনি করিম ভান্ডারী হিসেবে বেশ পরিচিত। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে থেকেই বাহারচড়া ইউনিয়ন উপ-নির্বাচনে স্থানীয় বেশ কয়েকজনকে বাহারচড়ার অভিভাবক হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে বিভিন্ন সময় দৌঁড়ঝাপ দেখা গেলেও দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকেই থমকে গেছে তাদের দৌঁড়ঝাপ।

এরই মধ্যে তিন তিন বার ওই ইউনিয়নে বীরত্বের সাথে ভোটযুদ্ধে লড়ে যাওয়া সেই বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী করিম প্রঃ করিম ভান্ডারী নামক জনপ্রিয় মুখটিই এখন প্রতিটি  আলোচনার শিরোনামে স্থান পাচ্ছে। কে সে করিম ভান্ডারী? বাহরচড়া জনসাধারণ কেনই বা তাকে অভিভাবক হিসেবে স্বপ্নে দেখছেন? টানা তিনদিনের জরিপে উঠে এসেছে গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য।

জানা যায়,  টানা ৩ বার নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করলেও সর্বশেষ গত ইউপি নির্বাচনে অদৃশ্য কারণে হেরে যান তিনি।এতে হতাশ হয়ে পড়েন ওই ইউপির বেশিরভাগ জনসাধারণ। গত ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ইং তারিখে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম মৃত্যু বরণ করায় পদটি শূন্য হয়ে পড়ে। এরপর থেকে দারুণ ভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে পরিষদের সকল কার্যক্রম। পরিষদের সকল কার্যক্রম যথাযথ পরিচালনা করতে একজন সৎ ও যোগ্য অভিভাবকের প্রয়োজন হলেও সেই অভিভাবক নির্বাচিত করতে উপ-নির্বাচনের জন্যে অপেক্ষায় রয়েছে জনসাধারণ। তবে চেয়ারম্যান তাজুলের মৃত্যুর পর থেকে ওই ইউনিয়নের প্রতিনিধি হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে বেশ কয়েকজনের দৌঁড়ঝাপ দেখা গেলেও গত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকে তাদের দৌঁড়ঝাপ পরিলক্ষিত হয়নি। এরই মধ্যে উপ-নির্বাচনের খবর ছড়িয়ে পড়ায় সর্বসাধারণের মুখে মুখে আলোচনার শিরোনামে উঠে আসছে জনগণের প্রত্যাশিত ও কাংখিত স্বপ্নের অভিভাবক বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী করিম ভান্ডারীর নাম।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী করিম (প্রঃ করিম ভান্ডারী) পরপর ৩ বার নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করছেন, গত নির্বাচনে তাকে জনগণ অনেক ভোট দিয়েছে, কিন্তু অদৃশ্য কারণে চেয়ারম্যান হননি তিনি। এতে জনগণ হতাশ হয়ে পড়েছে। নির্বাচিত না হলেও এলাকার অসহায় মানুষের পাশে থেকে বিভিন্ন সাহায্য সহযোগিতা করে যাচ্ছেন তিনি। সব সময় মানবিক সহায়তা প্রদানে নিরলস ভাবে এলাকার মানুষের পাশে থাকেন। তাই উপ-নির্বাচনে বাহারচড়ার সর্বসাধারণ তাকে অভিভাবক হিসেবে পেতে চায় বলে স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে।

তবে এবিষয়ে বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী করিম প্রঃ করিম ভান্ডারী বলেন, মেসার্স H.H.B Enterprise,  মেসার্স H.H.B Wooden Industries এবং H.H. B MS Pipe pLat Beam Channel Industries নামে আমার তিনটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এছাড়াও ৭/৮টি ব্যবসায়িক লাইসেন্সও আছে। তিনটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে প্রায় ১শ জনের মতো লোক শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন। ওইসব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে হালাল উপার্জনের লভ্যাংশ থেকে একটি অংশ আমার এলাকার মানুষের জন্যে উৎসর্গ করে দিয়ে থাকি। আর সহযোগিতার বিষয়টি খুব গোপন রাখার চেষ্টা করি। কারণ এটা আমার পীরের নির্দেশ। জনপ্রতিনিধি হওয়ার কোন স্বপ্ন আমার ছিলনা, সবসময় জনগণের সেবক হিসেবে ছিলাম, এখনো আছি, ভবিষ্যতেও জনগণের সেবা করে যাবো ইনশাল্লাহ।

তবে আমার এলাকার মানুষের অনুরোধে তিন বার ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলাম, জনগণ আমাকে ভোট দিয়েছে কিন্তু অদৃশ্য কারণে আমাকে হারানো হয়েছে। ইউপি চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম মৃত্যু বরণ করায় পদটি শূন্য হয়ে পড়ে। যার ফলে সামনে উপ-নির্বাচন হবে। এই নির্বাচনে এলাকার সর্বস্তরের জনগণ আমাকে নির্বাচন করার জন্যে অনুরোধ করতেছে। তারা বলছে অদৃশ্য কারণ উদ্ভবের কোন সম্ভাবনা আর নেই সুতরাং আপনাকে নির্বাচনে আসতেই হবে, তাই সর্বসাধরণের অনুরোধে আমি আবারও নির্বাচনে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছি। জনগণ যদি আমাকে নির্বাচিত করে আমার জীবন বাজি রেখে এলাকার অবকাঠামো উন্নয়নসহ সর্বস্তরের মানুষের সেবক হিসেবে কাজ করে যাবো, এবং বাহারচড়াকে মাদক, দূর্নীতি সন্ত্রাস ও অপরাধমুক্ত একটি মডেল ইউনিয়ন গড়ে তুলবো ইনশাল্লাহ। এটাই আমার শেষ প্রতিজ্ঞা। এসময় তিনি আরও বলেন, বিগত সময়ে কারা ভোট দিয়েছে বা দেয়নাই সেটা আমি বলতে চাইনা। কারণ সবাই আমার এলাকার মানুষ, আমার চোখে সবাই সমান, কাউকে আমি পর হিসেবে জানিনা। সবাই আমার আপনজন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, রুপান্তর প্রতিদিন এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়