যে কারণে ধর্মেন্দ্র ও হেমা বিয়ের নথিতে মুসলিম নাম লিখেছিলেন

আগের সংবাদ

১৩ দেশের ৩৭ ব্যক্তির ওপর ভিসা নিষেধাজ্ঞা দিল যুক্তরাষ্ট্র

পরের সংবাদ

 বেগম রোকেয়া ছিলেন দূরদৃষ্টিসম্পন্ন একজন আধুনিক নারী–উপজেলা চেয়ারম্যান শরিফুনেচ্ছা মিকি  

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৯, ২০২৩ , ৭:৩৭ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ৯, ২০২৩ , ৭:৩৭ পূর্বাহ্ণ
বেগম রোকেয়া ছিলেন দূরদৃষ্টিসম্পন্ন একজন আধুনিক নারী। তিনি উপলব্ধি করেছিলেন সমাজ তথা রাষ্ট্রের সার্বিক উন্নয়নের জন্য পুরুষের পাশাপাশি নারীকে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার মাধ্যমে উপযুক্ত করে গড়ে তোলা একান্ত প্রয়োজন। তার এই উপলব্ধি ও আদর্শ আজও আমাদের অনুপ্রেরণা যোগায়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা নারীদের ক্ষমতায়নে সোনার বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।
৯ডিসেম্বর শনিবার সকালে  কোটচাঁদপুর উপজেলা অফির্সাস ক্লাব মিলনায়তনে উপজেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়ের আয়োজনে- শেখ হাসিনার বার্তা-নারী পুরুষ সমতা, নারীর জন্য বিনিয়োগ, সহিংসতা প্রতিরোধ প্রতিপাদ্যে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বেগম রোকেয়া দিবস শ্রেষ্ঠ জয়িতাদের সন্মাননা প্রদান উপলক্ষে মানববন্ধন শেষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান শরিফুন্নেছা মিকি।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার উছেন মে।
অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন উপজেলা তথ্য সেবা কর্মকর্তা তানিয়া সুলতানা।
স্বাগত বক্তব্য রাখেন জয়ীতা নারী অর্থনৈতিকভাবে সাফল্য অর্জন কারী ও শিক্ষা ও চাকুরী ক্যাটাগরিতে শর্মিলা আহমেদ, সফল জননী শাহজাহান বেগম, সমাজ উন্নয়নে শহর বানু।
আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন  উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান  রিয়াজ হোসেন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পিংকি খাতুন, মডেল থানার তদন্ত ওসি জগন্নাথ চন্দ্র, বীর মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার তাজুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ফারজেল হোসেন মন্ডল, কৃষি অফিসার মহাসীন আলী, সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা সঞ্জয় কুমার, সমাজ সেবা কর্মকর্তা জহুরুল ইসলাম, পল্লী সঞ্চয় কর্মকর্তা চম্পা অধিকারী,  পৌর কাউন্সিলর জাহিদ হোসেন, কোটচাঁদপুর রিপোর্টার্স ক্লাব সভাপতি সুব্রত কুমার, কোটচাঁদপুর রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ বাশার প্রমুখ।
অনুষ্ঠানের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা শিলা বেগম।  এ সময় ৪ জন শ্রেষ্ঠ জয়িতা নারীদের  হাতে সন্মাননা স্বরূপ ক্রেষ্ট তুলে দেওয়া হয়। সে সময় উপস্থিত ছিলেন নির্যাতিতা নারী, শিক্ষক, উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা কর্মচারী ও স্থানীয় সাংবাদিকবৃন্দসহ নানা শ্রেণী পেশার মানুষ।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, রুপান্তর প্রতিদিন এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়