বাকড়া ভূমি কর্মকর্তা আয়ুব হোসেনের রমরমা বাণিজ্য

আগের সংবাদ

শ্যামকুড় ইউনিয়ন ভূমি উপ সহকারী কর্মকর্তা জুলফিক্কার আলীর রমরমা বাণিজ্য, দেখার কেউ নেই 

পরের সংবাদ

মানিকগঞ্জ সদরের চক মিরসরাই ভূমি কর্মকর্তা নেপাল চন্দ্র সাহার  রমরমা বাণিজ্য, দেখার কেউ নেই 

প্রকাশিত: জুন ২৪, ২০২৪ , ৮:২২ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জুন ২৪, ২০২৪ , ৮:৫৫ পূর্বাহ্ণ
মানিকগঞ্জ সদরের ঐতিহ্যবাহী চক মিরসরাই ভূমি অফিস এখন পরিণত হয়েছে ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা নেপাল চন্দ্র সাহার ঘুষ দূর্নীতি আর লুটপাট বাণিজ্যের অভয়ারণ্যে।
এখানে ঘুষ ছাড়া মেলেনা সেবা, নড়েনা ফাইল।
রহস্যজনক কারণে কর্তৃপক্ষও নিশ্চুপ।
জানা গেছে নামজারী, এপি, ভিপি, এলএ, পেরীফেরীভূক্ত, ফিরনিবাস, হাট চাঁদনী, জলমহাল, বালুমহাল বরাদ্দ নবায়ন ও তদন্ত রিপোর্টের নামেও চলছে ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা নেপাল চন্দ্র সাহার রমরমা লুটপাট বাণিজ্য। আর এসব অবৈধ কর্মকাণ্ডে তাঁকে সার্বক্ষণিক সহযোগিতা করে যাচ্ছে তাঁর সৃষ্ট সংঘবদ্ধ দালাল সিন্ডিকেট।
এতে ব্যক্তিগতভাবে চক মিরসরাই ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা নেপাল চন্দ্র সাহা অঢেল অবৈধ সম্পদের পাহাড় গড়ে তুললেও সরকার হারাচ্ছে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব।
তাই নেপাল চন্দ্র সাহাকে অনতিবিলম্বে অপসারণ ও তাঁর অবৈধ সম্পদের খোঁজ তল্লাশী নিতে উর্ধতন কর্তৃপক্ষ সহ দুদকের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন মানিকগঞ্জ সদর এর চক মিরসরাই  এলাকার সচেতন মহল।।
পুনশ্চ: এই রিপোর্টের সারমর্মটুকু জানিয়ে নেপাল চন্দ্র সাহাকে অবহিত করা হলেও তিনি আত্মপক্ষ সমর্থনের প্রশ্নে কোনো বক্তব্য প্রদান করেননি।।
( আগামীকাল এই বিষয়ে বিস্তারিত পড়ুন দৈনিক দেশবাংলা, দৈনিক খবরের আলো ও দৈনিক খবর বাংলাদেশ পত্রিকায়)।। 

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, রুপান্তর প্রতিদিন এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়